রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ০৯:৫৮ অপরাহ্ন

‘এটি খুব কষ্টের বিষয়, আমারও দায় আছে, ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন’

তরফ নিউজ ডেস্ক : রাজাকারের তালিকায় মুক্তিযোদ্ধাদের নাম থাকা দুঃখজনক উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় তালিকা গোলমাল করে ফেলেছে, তবে কিভাবে এমন ভুল হলো তা রহস্যজনক। বিষয়টিকে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ জানান তিনি।

রাজাকারের তালিকায় কোনওভাবেই মুক্তিযোদ্ধাদের নাম আসবে না বলেও সাফ জানিয়ে দেন সরকার প্রধান।

বুধবার (১৮ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় গণভবনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জিয়া কিংবা এরশাদ ব্যবহার না করলে পাকিস্তানের করা তালিকা নিয়ে গোলমাল হতো না বলেও এ সময় মন্তব্য করেন তিনি।

রাজাকারদের তালিকায় ভুল-ভ্রান্তি প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা আরও বলেছেন, এটি খুব কষ্টের বিষয়। যার পরিবার সদস্যরা শহীদ হয়েছে, যুদ্ধ করেছেন। তাদের যদি রাজাকার শব্দটি শুনতে হয়। তাহলে খারাপ লাগারই কথা। আমি বলব যারা দুঃখ পেয়েছেন তারা শান্ত হোন। যারা মুক্তিযোদ্ধা তারা কোনওদিনও রাজাকারের তালিকায় থাকতে পারে না। এটি হতে পারে না। কোনও মুক্তিযোদ্ধাকে রাজাকারের তালিকায় রাখা যাবে না, এটা অসম্ভব।

তিনি বলেন, সরকারের প্রধান হিসেবে এ ঘটনায় আমারও দায় আছে, ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

শেখ হাসিনা বলেন, তালিকাটি সময় নিয়ে প্রকাশ করা দরকার ছিল। আসলে আমিও ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলাম। সবদিক সময় মতো খেয়াল রাখতে পারিনি। আমি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীকে বলেছিলাম, তালিকাগুলো নিয়ে ভালোভাবে যাচাই-বাছাই করতে হবে। এত তাড়াতাড়ি এটি প্রকাশ করার কথা না। তাও বিজয় দিবসের আগে। এত সুন্দর বিজয় দিবস উদযাপন করলাম কিন্তু শহীদ পরিবার, মুক্তিযোদ্ধা পরিবার এতে কষ্ট পেয়েছে।

রাজকারের তালিকা সম্পর্কে তিনি আরও বলেন, রাজাকারদের তালিকা করতে গিয়ে, স্বাধীনতার পর যাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছিল তাদের তালিকাও ঢুকে পড়েছে। ১৯৭১ সালে যারা মুক্তিযুদ্ধে গিয়েছিল তাদের অনেককেই পাকিস্তান দুর্বৃত্ত-সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত করে মামলা দিয়েছিল। জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগের নেতাদের তালিকা ধরে ধরে কষ্ট দিয়েছে। এরশাদের সময়ও এটি ব্যবহার করা হয়েছে। কিশোরগঞ্জে ১ নম্বর সন্ত্রাসীর তালিকায় নাম ছিল জিল্লুর রহমানের। আমরা ক্ষমতায় এসে এটি অমিট করতে বলেছিলাম।

শেখ হাসিনা বলেন, তালিকা করতে গিয়ে এখানে ভুল হয়েছে। সব মিলিয়ে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় একটা গোলমাল করে ফেলেছে। যারা মুক্তিযোদ্ধা এ রকম এক হাজার জনের মতো নাম দেয়া হয়েছে। সেটি কীভাবে ওই তালিকায় চলে গেল এটি একটি রহস্য। রাজাকারদের তালিকা তার তো গেজেট করা আছে। আল বদর, আল শামস এদের গেজেট করা আছে। আমরা যখন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল করলাম ওই গেজেট থেকে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। কাজেই যে তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে তা কোনওমতেই রাজাকারের তালিকা নয়। যাদের ওই সময়ে জন্ম হয়নি এমন অনেকেরই নামই তালিকায় ঢুকে গেছে।

সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরও বলেন, ভালো কাজ করলে সবার সহযোগিতা পাওয়া যায়। সবার সহযোগিতায় উন্নয়নের চাকা ধরে রাখা সম্ভব হয়েছে। যার ফলাফল জনগণ পাচ্ছে। আমরা যে উন্নয়ন করেছিলাম ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় এসে নষ্ট করে দিয়েছিল। ২০০৯ সালে আমরা ক্ষমতায় এসে আবার উন্নয়নগুলো নতুন করে শুরু করলাম। কাজেই বাংলাদেশের যে উন্নয়ন শুরু হয়েছে তার অগ্রযাত্রা কেউ থামিয়ে রাখতে পারবে না। সরকারের ধারাবাহিকতা বজায় থাকলে বাংলাদেশ অভীষ্ট লক্ষ্যে এগিয়ে যাবে।

সূত্র: দৈনিক জাগরণ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

ওয়েবসাইটের কোন কনটেন্ট অনুমতি ব্যতিত কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com