বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ০২:০৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বাহুবলে ভূমি সেবা সপ্তাহের উদ্বোধন বাহুবলে জাতীয় পুষ্টি সেবা কার্যক্রমের আওতায় কর্মশালা অনুষ্ঠিত ফয়জাবাদ হাই স্কুলের সভাপতি সামিউল ইসলাম ঘূর্ণিঝড় রেমাল: ১৯ উপজেলার নির্বাচন স্থগিত বাহুবল উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অবাদ, সুন্দর ও দাঙ্গামুক্তভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে বাসার ছাদে আম পাড়তে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে শিশুর মৃত্যু রেমাল পরিণত প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে, মহাবিপদ সংকেত বাহুবলে ৫ আওয়ামীলীগ নেতাকে হারিয়ে আলেম চেয়ারম্যান নির্বাচিত শান্তিপূর্ণ ও বিশ্বাস যোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত করতে পুলিশ বদ্ধপরিকর- এসপি আক্তার হোসেন জনগণ যাকে ভালবাসবে, দায়িত্ব দিতে চাইবে, তাকেই দেবে- জেলা প্রশাসক

আজমিরীগঞ্জে এন্ড্রয়েড মোবাইল দিলেই মিলছে পদ-পদবি !

রায়হান উদ্দিন সুমন : মাত্র ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা মূল্যের একটি এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোন দিলেই মিলছে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের গুরুত্বপুর্ণ পদ! এমনি একটি মোবাইলের কথোপকথন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গতকাল থেকেই ভাইরাল হয়েছে।

ভাইরাল হওয়া অডিওটি “আজমিরীগঞ্জের বাণী” নামক এই আইডি থেকে ছড়িয়ে দেয়া হয়। বিষয়টি নিয়ে খোদ ছাত্রলীগের অনেক নেতাকর্মীরাই ক্ষোভ জানিয়েছেন। ফাঁস হওয়া এই অডিওটি এই প্রতিবেদকের হাতে এসে পৌছেছে। ফাঁস হওয়া অডিও রেকর্ড থেকে জানা যায়, আজমিরীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি অচিরেই ভেঙ্গে দেয়া হবে জেনে বর্তমান উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন ও একই উপজেলার বিরাট গ্রামের আমিনুলের হকের মধ্যকার পদ-পদবি নিয়ে দেনদরবার চলে।

আজমিরীগঞ্জের বাণী নামে এক ফেইসবুক আইডি থেকে অডিও রেকর্ডের স্ক্রীনসর্ট

একপর্যায়ে আমিনুল আমিরকে ফোন দিয়ে কোন পদ দেয়া হবে জানতে চায়। পরে আমির হোসেন আমিনুলকে আজমিরীগঞ্জ থানার সর্বোচ্চ পদ দেয়ার লোভ দেখায়। পরবর্তীতে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বা সাংগঠনিক দেয়ার প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন আমির হোসেন। বিনিময়ে তাকে ৫/৬ হাজার টাকা মূল্যের একটি এন্ড্রয়েড মোবাইল দেয়ার কথাও  জানায় সে। অডিওর একফাঁকে আমিনুল তার কাছে এতটাকা নাই বলে আমির হোসেনকে বলে দেয়। এই কথা শুনে সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন  এই এন্ড্রয়েড ফোন দেয়ার জন্য খুব অনুনয় করে। টাকা না থাকলে বাজারের মঞ্জিল মিয়ার দোকান থেকে বাকিতে মোবাইল কেনার জন্য পদপ্রার্থী আমিনুলকে বলে তিনি।

এই বিষয়ে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন-বিষয়টি সম্পুর্ণ অনাকাঙ্খিত। খামখেয়ালিভাবে কথাবার্তা হয়েছে। পদ দেয়ার মালিক আমি না। আমাকে ফাঁসানোর জন্যই এই রেকর্ডটা ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে। এদিকে ছাত্রলীগের এই নেতার অডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ায় পুরো উপজেলা জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে রসালো আলোচনা। টাকার বিনিময়ে বা কোনো কিছুর বিনিময়ে ছাত্রলীগের পদ-পদবি যারা বিক্রি করতে চায় তাদেরকে সংগঠন থেকে স্থায়ী বহিষ্কার করার কথাও জানা কেউ কেউ। গুটিকয়েক নেতাকর্মীর জন্য এই ঐতিহ্যবাহী ছাত্র সংগঠনের উপর কালেমা লেপন হবে তা কেউ মানতে পারছেন না।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

ওয়েবসাইটের কোন কনটেন্ট অনুমতি ব্যতিত কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com