বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ০৩:১০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বাহুবলে ভূমি সেবা সপ্তাহের উদ্বোধন বাহুবলে জাতীয় পুষ্টি সেবা কার্যক্রমের আওতায় কর্মশালা অনুষ্ঠিত ফয়জাবাদ হাই স্কুলের সভাপতি সামিউল ইসলাম ঘূর্ণিঝড় রেমাল: ১৯ উপজেলার নির্বাচন স্থগিত বাহুবল উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অবাদ, সুন্দর ও দাঙ্গামুক্তভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে বাসার ছাদে আম পাড়তে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে শিশুর মৃত্যু রেমাল পরিণত প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে, মহাবিপদ সংকেত বাহুবলে ৫ আওয়ামীলীগ নেতাকে হারিয়ে আলেম চেয়ারম্যান নির্বাচিত শান্তিপূর্ণ ও বিশ্বাস যোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত করতে পুলিশ বদ্ধপরিকর- এসপি আক্তার হোসেন জনগণ যাকে ভালবাসবে, দায়িত্ব দিতে চাইবে, তাকেই দেবে- জেলা প্রশাসক

শরীফের জবানিতে নুসরাতের উপর বর্বরতার চিত্র

তরফ নিউজ ডেস্ক : নুসরাত জাহান রাফিকে হত্যার সঙ্গে নিজের সম্পৃক্ততা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে আবদুর রহিম শরীফ। বুধবার বিকাল ৫টা থেকে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত ফেনীর জৈষ্ঠ হাকিম (সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট) মো. সারাফ উদ্দিন আহমদের আদালতে তার জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। জবানবন্দিতে শরিফ নুসরাতকে নিয়ে যত ষড়যন্ত্র হয়েছে তার বিশদ বর্ণনা দিয়েছে। তার জবানিতে বরর্বর চিত্র ফুটে উঠেছে পিবিআই-এর চট্টগ্রাম বিভাগীয় বিশেষ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইকবাল বলেন, নুসরাত হত্যা মামলার অন্যতম আসামি শরিফ ঘটনার সঙ্গে জড়িত বলে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। দীর্ঘ সময় ধরে দেয়া জবানবন্দিতে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সম্পর্কিত অনেক তথ্য উঠে এসেছে। তদন্তের স্বার্থে এই মুহুর্তে সবকিছু বলা যাচ্ছে না বলেও তিনি জানান। মোহাম্মদ ইকবাল বলেন, পরবরতীতে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিস্তারিত তুলে ধরা হবে।

এর আগে এ মামলায় গত রোববার মধ্যরাতে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসাইনের আদালতে নুসরাত হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেয় মামলার অন্যতম আসামী নুর উদ্দিন ও শাহাদাত হোসেন শামীম।

জবানবন্দিতে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার নির্দেশে তারা নুসরাতের গায়ে আগুন দিয়েছে বলে স্বীকার করেছে। তাদের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে পিবিআই ঘটনার সঙ্গে জড়িত অপর আসামীদের আটক করেছে।

আলোচিত এ মামলা এ পর্যন্ত ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ও পিবিআই। এদের মধ্যে মাদরাসার অধ্যক্ষ এসএম সিরাজ উদ দৌলা, পৌর কাউন্সিলর ও পৌর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাকসুদ আলম, শিক্ষক আবছার উদ্দিন, সহপাঠি আরিফুল ইসলাম, নূর হোসেন, কেফায়াত উল্যাহ জনি, মোহাম্মদ আলা উদ্দিন, শাহিদুল ইসলাম, অধ্যক্ষের ভাগনি উম্মে সুলতানা পপি, জাবেদ হোসেন, যোবায়ের হোসেন, নুর উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন, মো. শামীম, কামরুন নাহার মনি, জান্নাতুল আফরোজ মনি ও শরিফুল ইসলাম ওরফে শরিফ। এদের মধ্যে মামলার এজহারভুক্ত আট জনের মধ্যে ৭ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গত ৬ এপ্রিল সকালে নুসরাত আলিমের আরবি প্রথম পত্র পিরীক্ষা দিতে গেলে মাদরাসায় দুর্বৃত্তরা গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এঘটনায় দগ্ধ নুসরাত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৫দিন পর ১০ এপ্রিল রাতে মারা যায়।

তথ্য সূত্র : মানবজমিন

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

ওয়েবসাইটের কোন কনটেন্ট অনুমতি ব্যতিত কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com