বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৬:১৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
ঘূর্ণিঝড় রেমাল: ১৯ উপজেলার নির্বাচন স্থগিত বাহুবল উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অবাদ, সুন্দর ও দাঙ্গামুক্তভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে বাসার ছাদে আম পাড়তে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে শিশুর মৃত্যু রেমাল পরিণত প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে, মহাবিপদ সংকেত বাহুবলে ৫ আওয়ামীলীগ নেতাকে হারিয়ে আলেম চেয়ারম্যান নির্বাচিত শান্তিপূর্ণ ও বিশ্বাস যোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত করতে পুলিশ বদ্ধপরিকর- এসপি আক্তার হোসেন জনগণ যাকে ভালবাসবে, দায়িত্ব দিতে চাইবে, তাকেই দেবে- জেলা প্রশাসক বাহুবলে বিয়ের আনন্দ-ফুর্তি চলাকালে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে যুবতীর মুত্যু বাহুবল উপজেলা নির্বাচন : ২০ প্রার্থীর মাঝে নির্বাচনী প্রতীক বরাদ্দ বাহুবল উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

বানিয়াচংয়ে সুদের টাকার জন্য শিকলে বেঁধে নির্যাতন

প্রতীকী ছবি

বানিয়াচং (হবিগঞ্জ) সংবাদদাতা :  বানিয়াচংয়ে কানন বালা দেব নামে সাবেক এক মহিলা ইউপি সদস্যকে বলপূর্বক তোলে নিয়ে দরজা বদ্ধ ঘরে সিকলে বেঁধে নির্যাতন করেছে প্রতিপক্ষের লোকেরা। সুদের টাকার জেরে তার ওপর নির্মম নির্যাতন চালানো হয়। পুলিশ গিয়ে কানন বালাকে সিকলে বাধা বন্দীদশা থেকে উদ্ধার করে।

শনিবার (৪ মে) দুপুরে বানিয়াচং সদরের রায়েরপাড়ায় এ ঘটনা ঘটেছে। কানন বালা একই পাড়ার সুনীল চন্দ্র দেবের স্ত্রী। তিনি দক্ষিণ-পশ্চিম ইউপির সংরক্ষিত ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য। কানন বালা দেব জানান, মেয়ে বিয়ে দেয়ার সময় পাশের গ্রামের টেনু মিয়ার স্ত্রী দোলন বেগমের কাছ থেকে সুদের ওপর ১ লাখ টাকা নেন। এসময় ব্যাংকের দুটি চেকের পাতাও দেন দোলন বেগমকে। ১ লাখ টাকায় ৬ মাসে নগদ ৭৮ হাজার টাকা লাভ দেন।

পরবর্তীতে ৫ লাখ টাকা মূল্যের বাড়ির ৫ শতক জায়গাও দেন রেজিস্ট্রি করে। রেজিস্ট্রি অফিসে চেকের পাতা ফেরত চাইলে বাড়িতে এসে দেবে বলে। বাড়িতে এসেও চেক ফেরত দেয়নি। নানা অজুহাতে সময় ক্ষেপন করে। শনিবার সকাল ১১টার দিকে পুকুরপাড় থেকে কানন বালাকে জোরপূর্বক তুলে নেয় দোলন ও তার স্বামী টেনু মিয়া। দোলনের ঘরের মধ্যে আটকে রেখে শারীরিক ও মানুসিক নির্যাতন চালায়। এক পর্যায়ে কানন বালাকে ঘরের মধ্যে রেখে বাহিরে তালাবন্ধ করে রাখে। কানন বালাকে তুলে নেয়ার সময় পাশের বাড়ির ফারজান নামে এক ছেলে দেখেছে। ফারজিন কানন বালার পরিবারের সদস্যদের জানালে তারা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ দ্রুত পৌঁছে কানন বালাকে বন্দিদশা অবস্থায় উদ্ধার করে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে দোলন বেগম পালিয়ে যান।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

ওয়েবসাইটের কোন কনটেন্ট অনুমতি ব্যতিত কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com