শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৯:৫৭ অপরাহ্ন

নীতিমালা নেই, অলস পড়ে আছে তামাক পণ্যের ৯০০ কোটি টাকার সারচার্জ

২০১৪ সাল থেকে তামাকপণ্যের ওপর এক শতাংশ হারে স্বাস্থ্য উন্নয়ন সারচার্জ আরোপ করে সরকার। গত তিন বছরে এ খাত থেকে সারচার্জ হিসেবে আদায় হয় প্রায় ৯০০ কোটি টাকা। তবে নীতিমালার অভাবে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে তিন বছর ধরে এ অর্থ অলস পড়ে আছে। এবার ওই অর্থ ব্যয়ের জন্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে চূড়ান্ত করা হয়েছে ‘স্বাস্থ্য উন্নয়ন সারচার্জ ব্যবস্থাপনা নীতি- ২০১৭’- এর খসড়া।

প্রস্তাবটি অনুমোদনের জন্য আগামী বৃহস্পতিবার (১২ অক্টোবর) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিতব্য মন্ত্রিসভা বৈঠকের অলোচ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেল সূত্রে জানা গেছে, সারচার্জ হিসেবে ২০১৪-১৫, ২০১৫-১৬ ও ২০১৬-১৭; এই তিন অর্থবছরে এক শতাংশ স্বাস্থ্য উন্নয়ন সারচার্জ বাবদ আদায় হয়েছে প্রায় নয়শ কোটি টাকা। এ অর্থ ‘স্বাস্থ্য উন্নয়ন সারচার্জ ব্যবস্থাপনা নীতি- ২০১৭’ এর মাধ্যমে তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমে ব্যবহার হওয়ার কথা। অর্থাৎ দেশের স্বাস্থ্য সুরক্ষা, তামাক নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কিত কর্মসূচি (গবেষণা ও প্রচারাভিযান) বাস্তবায়ন, নিকোটিন আসক্তদের আসক্তিমুক্ত করার কর্মসূচি বাস্তবায়ন, তামাক চাষে নিয়োজিত কৃষক এবং তামাকপণ্য উৎপাদনে নিয়োজিত শ্রমিকদের বিকল্প কর্মসংস্থানের কর্মসূচি বাস্তবায়ন কাজে ব্যবহার করা হবে।

জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেলের প্রোগ্রাম অফিসার ডা. মাহবুব সোবহান জাগো নিউজকে বলেন, তারা ‘স্বাস্থ্য উন্নয়ন সারচার্জ ব্যবস্থাপনা নীতি- ২০১৭’ এর খসড়াটি বিবেচনার জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠিয়েছেন। খসড়াটি আগামীকাল সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে উপস্থাপনের কথা ছিল। কিন্তু মন্ত্রিসভার বৈঠক পরিবর্তন করে আগামী বৃহস্পতিবার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবারের বৈঠকে খসড়াটি উপস্থাপনের কথা রয়েছে।

জানা গেছে, স্বাস্থ্য উন্নয়ন সারচার্জ আমদানি ও উৎপাদন পর্যায়ে আরোপিত এক প্রকার শুল্ক যা সাধারণত জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর পণ্য যেমন- তামাক, অ্যালকোহল ইত্যাদির ওপর আরোপ করা হয়। এ ধরনের শুল্ককে ‘সিন ট্যাক্স’ নামেও অভিহিত করা হয়। মূলত ক্ষতিকর পণ্যের ব্যবহার হ্রাস ও ব্যবহারজনিত অসুখের চিকিৎসা খরচ মেটাতেই এ ধরনের সারচার্জ আরোপের মাধ্যমে রাজস্ব আহরণ করা হয়। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে স্বাস্থ্য উন্নয়ন সারচার্জ থেকে প্রাপ্ত অর্থ সাধারণত সংশ্লিষ্ট রোগের চিকিৎসা, গবেষণা, সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন এবং বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টিসহ প্রভৃতি কাজে ব্যয় করা হয়।

সূত্র জানায়, নিয়মিত শুল্ক আরোপের পাশাপাশি তামাকপণ্যে স্বাস্থ্য উন্নয়ন সারচার্জ আরোপ ক্রমশ পৃথিবীব্যাপী জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশসহ বিশ্বের প্রায় ১১টি দেশে তামাকপণ্যে অতিরিক্ত শুল্ক হিসেবে স্বাস্থ্য উন্নয়ন সারচার্জ আদায় করা হয়। এসব দেশগুলোর মধ্যে ভারত, থাইল্যান্ড, নেপাল, কাতার, মঙ্গোলিয়া, ভিয়েতনাম, লাওস, আইসল্যান্ড ও এস্তোনিয়া অন্যতম।

তথ্য অনুসন্ধানে দেখা যায়, পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে ১৯৭৬ সালে প্রতি ১০০০ শলাকা বিড়ির ওপর পাঁচ রুপি হারে সারচার্জ আরোপ করা হয়। নেপালে শলাকাপ্রতি সিগারেটে এক পয়সা হারে শুল্ক আরোপ শুরু হয় ১৯৯৩ সালে এবং পরবর্তীতে ২০০৩-০৪ অর্থবছরে এটি বাড়িয়ে দুই পয়সা ধার্য করা হয়। এছাড়া থাইল্যান্ডে (২০০১ সালে থেকে) দুই শতাংশ, কাতারে (২০০২ সালে থেকে) দুই শতাংশ, মঙ্গোলিয়ায় (২০০৫ সাল থেকে) দুই শতাংশ, আইসল্যান্ডে (১৯৯৬ সাল থেকে) ০.৯ শতাংশ, এস্তোনিয়ায় (১৯৯৪ সাল থেকে) ৩.৫ শতাংশ, ভিয়েতনামে (২০১৩ সাল থেকে) ১.২ শতাংশ এবং লাওসে (২০১৩ সাল থেকে) প্যাকেটপ্রতি ইউএসডি ০.০৩ হারে সারচার্জ আদায় করা হয়।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকার তামাক থেকে সারচার্জ হিসেবে আদায়কৃত অর্থ তামাক নিয়ন্ত্রণসহ নানাবিধ কাজে ব্যয় করছে। ভারতে এই অর্থ দিয়ে ‘বিড়ি ওয়ার্কার্স ওয়েলফেয়ার ফান্ড’ গঠন করা হয়েছে। এই ফান্ডের মাধ্যমে নিবন্ধিত বিড়ি শ্রমিকদের বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা, মাতৃত্বকালীন সুবিধা, সন্তানদের স্কুলড্রেস, বৃত্তি ইত্যাদি প্রদান করা হয়ে থাকে। থাইল্যান্ডে এই অর্থ দিয়ে ‘থাই হেলথ ফাউন্ডেশন’ গঠন করা হয়েছে যা তামাকের ব্যবহার হ্রাসে নানাবিধ কর্মকান্ড যেমন: গবেষণা, মিডিয়া ক্যাম্পেইন ইত্যাদি পরিচালনা করা হয়। নেপালে এই সারচার্জের টাকায় গঠিত ‘হেলথ ট্যাক্স ফান্ড’ থেকে বি.পি কৈরালা মেমোরিয়াল ক্যান্সার হাসপাতাল, নেপাল ক্যান্সার রিলিফ সোসাইটিসহ অন্যান্য কমিউনিটি হাসপাতালে সহায়তা প্রদান করা হয়ে থাকে।

এদিকে খসড়া নীতিমালা দ্রুত চূড়ান্ত করে সারচার্জের অর্থ তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমে ব্যবহারের তাগিদ দিয়েছে তামাকবিরোধী সংগঠনের নেতারা। তারা বলছেন, তামাক কোম্পানি প্রতি বছর লক্ষাধিক কর্মক্ষম জীবন কেড়ে নিচ্ছে, পঙ্গু করে ফেলছে প্রায় চার লাখ মানুষকে। পরিবেশ-প্রতিবেশ, খাদ্য নিরাপত্তা, জমির উর্বরতা, শিশুশ্রম, শিক্ষাসহ উন্নয়নের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে।

সব ধরনের তামাকপণ্যে কার্যকর করারোপের পাশাপাশি স্বাস্থ্য উন্নয়ন সারচার্জ আদায় এবং আদায়কৃত অর্থের কার্যকর ব্যবহার না করতে পারলে তামাকের ভয়াবহ ছোবল থেকে জাতিকে রক্ষা করা যাবে না।

জানতে চাইলে প্রগতির জন্য জ্ঞানের (প্রজ্ঞা) নির্বাহী পরিচালক এ বি এম জুবায়ের বলেন, তামাক নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি সরাসরি এসডিজির (টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য) সঙ্গে সম্পৃক্ত। তাই এসডিজি বাস্তবায়ন করতে বৈদেশিক অর্থায়নের নির্ভরতা বাদ দিয়ে অভ্যন্তরীণ সম্পদ থেকে অর্থায়ন করতে হবে। সেক্ষেত্রে সারচার্জের নীতিমালা দ্রুত করে তামাক নিয়ন্ত্রণে এ অর্থ ব্যয় করা গেলে একদিকে যেমন তামাক নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে, অন্যদিকে নিজস্ব অর্থায়নে এসডিজির একটি অংশ বাস্তবায়নে অবদান রাখবে। এক্ষেত্রে সরকারকেই ভূমিকা নিতে হবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

ওয়েবসাইটের কোন কনটেন্ট অনুমতি ব্যতিত কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com