শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০১:১৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বাহুবলে ভূমি সেবা সপ্তাহের উদ্বোধন বাহুবলে জাতীয় পুষ্টি সেবা কার্যক্রমের আওতায় কর্মশালা অনুষ্ঠিত ফয়জাবাদ হাই স্কুলের সভাপতি সামিউল ইসলাম ঘূর্ণিঝড় রেমাল: ১৯ উপজেলার নির্বাচন স্থগিত বাহুবল উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অবাদ, সুন্দর ও দাঙ্গামুক্তভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে বাসার ছাদে আম পাড়তে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে শিশুর মৃত্যু রেমাল পরিণত প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে, মহাবিপদ সংকেত বাহুবলে ৫ আওয়ামীলীগ নেতাকে হারিয়ে আলেম চেয়ারম্যান নির্বাচিত শান্তিপূর্ণ ও বিশ্বাস যোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত করতে পুলিশ বদ্ধপরিকর- এসপি আক্তার হোসেন জনগণ যাকে ভালবাসবে, দায়িত্ব দিতে চাইবে, তাকেই দেবে- জেলা প্রশাসক

নিজ শহরে হেরেই চলেছে চিটাগং

স্পোর্টস ডেস্ক : বিপিএলের চট্টগ্রাম পর্বে রান জোয়ারের মাঝেই দেখা গেল উল্টো স্রোত। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বোলিংয়ের সামনে দাঁড়াতেই পারল না চিটাগং ভাইকিংসের ব্যাটিং। নিজ শহরের মাঠে চিটাগং হারল টানা তিন ম্যাচ।

বিপিএলে মঙ্গলবার চিটাগং ভাইকিংসকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। বৃষ্টিতে ১৯ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে চিটাগংকে ১১৬ রানেই আটকে রেখে কুমিল্লা জিতেছে ১৪ বল বাকি রেখে।

ঢাকায় ৭ ম্যাচে ৬ জয় নিয়ে চট্টগামে এসে চিটাগং হারল তিন ম্যাচের সবকটি। ১০ ম্যাচে ৭ জয়ে কুমিল্লা আপাতত উঠে গেল পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে।

ম্যাচের দ্বিতীয় ওভারে দুই উইকেট হারিয়ে চিটাগংয়ের ভোগান্তির শুরু। ধুঁকতে থাকা দলকে শেষ দিকে কিছুটা বলার মতো রান এনে দিয়েছিলেন মোসাদ্দেক হোসেন। তবে সেই রানে লড়াই করাও যায়নি।

উইকেট খুব বোলিং সহায়ক ছিল না। তবে কন্ডিশন এ দিন সৃষ্টি করেছিল একটু ভিন্ন আবহ। বৃষ্টির কারণে খেলা শুরু হয় ১৫ মিনিট দেরিতে। আকাশ ছিল মেঘলা, বাতাস শীতল। শঙ্কা ছিল আরও বৃষ্টির। চিটাগং অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম টস জিতে তবু বেছে নেন ব্যাটিং। ১ ওভার পরই নামে বৃষ্টি।

আধ ঘণ্টা পর খেলা আবার শুরু হয় ম্যাচ ১ ওভার কমিয়ে। চিটাগং বিপদে পড়ে খেলা শুরু হওয়া মাত্রই।

এবারের আসরে প্রথম খেলতে নামা সাদমান ইসলাম ও দারুণ ফর্মে থাকা ইয়াসির আলি রাব্বিকে এক ওভারেই ফেরান মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন। দুজনের কেউ পাননি রানের দেখা।

দলকে উদ্ধার করতে পারেননি মুশফিকও। ওয়াহাব রিয়াজের প্রথম ওভারেই থার্ডম্যানে গ্লাইড করতে গিয়ে আউট হন ৬ রানে। আবু হায়দারের এক ওভারে দুটি ছক্কা মারলেও নাজিবউল্লাহ জাদরান আউট হন ১৩ রানেই।

দারুণ বোলিং করা শহিদ আফ্রিদির শিকার মিডল অর্ডারে ক্যামেরন ডেলপোর্ট ও সিকান্দার রাজা।

ওপেনিংয়ে নামা মোহাম্মদ শাহজাদ টিকে ছিলেন তখনও। কিন্তু মোসাদ্দেকের ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে আফগান ওপেনার রান আউট হয়ে যায় ৩৫ বলে ৩৩ করে।

মোসাদ্দেক পরে ব্যাট হাতে চেষ্টা করেছেন সেই ক্ষতি পুষিয়ে দিতে। খেলেছেন দারুণ কিছু শট। থিসারা পেরেরার এক ওভারে মেরেছেন চার ও ছক্কা, সাইফের এক ওভারে ছক্কা দুটি। তিনটি করে চার ও ছক্কায় অপরাজিত থেকে যান ৪৩ রানে।

কুমিল্লার সেরা বোলার আবারও ছিলেন আফ্রিদি। দুই পেসার ওয়াহাব ও সাইফের বোলিংও ছিল দারুণ কার্যকর।

রান তাড়ায় কুমিল্লা কোনো তাড়াহুড়ো করেনি। ফিল্ডিংয়ের সময় পায়ে টান পড়ায় ব্যাটিংয়ে নামেননি আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান এভিন লুইস। জিততে তবু সমস্যা হয়নি তাদের।

ব্যর্থতার বলয়ে থাকা ওপেনার এনামুল হক ফেরেন ৮ রান করে। দ্বিতীয় উইকেটে ৬৫ রানের জুটিতে দলকে জয়ের কাছে নিয়ে যান তামিম ইকবাল ও শামসুর রহমান।

২২ বলে ৩৬ রান করে ছক্কা মারার চেষ্টায় আউট হয়েছেন শামসুর। একটি ছক্কা মেরে অধিনায়ক ইমরুল কায়েসও আউট হয়ে গেছেন। তবে তামিম ফিরেছেন দলের জয় সঙ্গে নিয়ে।

সাবধানী ব্যাটিংয়ে এবারের আসরের দ্বিতীয় ফিফটি করেছেন তামিম। ইনিংস শেষে অপরাজিত থেকে যান ৫১ বলে ৫৪ রান করে।

ইনিংসটির পথে বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে তামিম ছুঁয়েছেন ৫ হাজার টি-টোয়েন্টি রানের মাইলফলক।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

চিটাগং ভাইকিংস: ১৯ ওভারে ১১৬/৮ (শাহজাদ ৩৩, সাদমান ০, ইয়াসির ০, মুশফিক ১৩, নাজিবউল্লাহ ১৩, দেলপোর্ত ৬, রাজা ৫, মোসাদ্দেক ৪৩*, নাঈম ৪, আবু জায়েদ ০*; আবু হায়দার ৩-০-২১-০, সাইফ ৪-০-২৩-২, ওয়াহাব ৪-০-২৩-২, মেহেদি ২-০-১৭-১, আফ্রিদি ৪-০-১০-২, থিসারা ২-০-২২-০)।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স: ১৬.৪ ওভারে ১১৭/৩ (তামিম ৫৪*, এনামুল ৮, শামসুর ৩৬, ইমরুল ৮, থিসারা ১০*; আবু জায়েদ ৪-০-২৫-২, নাঈম ৪-০-২৬-০, খালেদ ৩.৪-০-২৫-১, মোসাদ্দেক ২-০-১৪-০, দেলপোর্ত ২-০-১৯-০, রাজা ১-০-৮-০)।

ফল: কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ৭ উইকেটে জয়ী

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

ওয়েবসাইটের কোন কনটেন্ট অনুমতি ব্যতিত কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com