শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১০:১৭ অপরাহ্ন

সানশাইনের অনুপ্রেরণামূলক শিক্ষা সফর-২০২০

সানশাইনের অনুপ্রেরণামূলক শিক্ষা সফর-২০২০
*****************************************

প্রতিবছরের ন্যায় এবারও সানশাইন মডেল হাই স্কুলের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের নিয়ে ২৬ ডিসেম্বর একটি ব্যতিক্রম শিক্ষা সফরের আয়োজন করা হয়।

যদিও শিক্ষা প্রতিষ্টানের ভ্রমণ মানেই শিক্ষা ভ্রমণ বা শিক্ষা সফর, তবু সানশাইনের এই সফরটি ছিল অন্য রকম এক অনুপ্রেরণামূলক শিক্ষা সফর।

ব্যতিক্রমী শিক্ষা সফরের দর্শনীয় স্হানগুলো হলো…

১। জাতীয় স্মৃতিসৌধঃ
————————–
দিনের শুরুতেই শীতের সকালে হালকা কুয়াশার আবহাওয়ায় শিক্ষার্থীদের নিয়ে আমরা সানশাইন পরিবার জাতীয় স্মৃতিসৌধে প্রবেশ করি।সেখানে শিক্ষার্থীরা শহীদদের স্মৃতি চারণ করে শ্রদ্ধাভরে দেশের গান পরিবেশন করে।নেওয়া হয় কিছু বিশেষ গ্রুপ ভিডিও ও ফটোসেশন।

২। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ঃ
—————————————–
সকালের হালকা নাস্হা শেষ করেই আমরা প্রবেশ করি শিক্ষার্থীদের স্বপ্নের একটি দ্বার জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে।সেখানে শিক্ষার্থীরা শহীদদের স্বরণে তৈরী স্মৃতি সৌধ, মুৃক্তিযুদ্ধের স্মৃতিতর্পণমূলক ভাস্কর্য “সংশপ্তক” এবং অমর একুশে ভাস্কর্যটি দর্শন করে যা বাংলাদেশের ভাষা আন্দোলনের স্মৃতিতর্পণমূলক ভাস্কর্যগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি ভাস্কর্য।সেখানেও নেওয়া হয় কিছু বিশেষ গ্রুপ ফটোসেশন।

৩। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ঃ
——————————
তারপরেই আমরা যাই শিক্ষার্থীদের আরেকটি বিশেষ স্বপ্ন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখানে ঐতিয্যবাহী কার্জনহল সহ বিভিন্ন বিভাগের ক্যাম্পাস দর্শন করে কার্জন হলের মাঠে আমরা বসি আলোচনার আসর নিয়ে।সেখানে মাঠেই শীতের বাতাসে মৃদু রৌদ্রের আলোছায়ায় পছন্দমত চা-কফি খেতে খেতে শুরু হয় একে একে আমাদের শিক্ষকদের বিশেষ এই শিক্ষা সফরের উদ্দ্যেশ্য ও ধৃত অভিজ্ঞতা নিয়ে আলোচনা।আলোচনায় যুক্ত হয়েছিলেন ঢাবির পদার্থবিজ্ঞানের একজন ছাত্রী।

৪। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারঃ
——————————
অত:পর শিক্ষার্থীদের নিয়ে আমরা যাই বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যা শিক্ষার্থীরা টেলিভিশন ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে কেবল দেখেছে।সরাসরি দেখতে পেয়ে শিক্ষার্থীদের আগ্রহপূর্ণ ফটোসেশন আমাদেরকে মুগ্ধ করে।

৫। রাজু স্মারক ভাস্কর্যঃ
—————————
যেতে যেতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চত্তরে অবস্হিত উঁচু রাজু ভাস্কর্য দেখে শিক্ষার্থীরা হঠাৎ থমকে দাড়াঁয়। সাধারণ জ্ঞান হিসেবে পড়লেও অনেকেই জানে না কে এই রাজু এবং কবে কখন তিনি শহীদ হয়েছিলেন।তিনি ছিলেন ঢাবির ছাত্র মঈন হোসেন রাজু।মুক্তিযুদ্ধের সময় নয়,তার অনেক অনেক পরে কলেজ ক্যাম্পাসেই সন্ত্রাসবিরোধী রাজু শহীদ হয়েছিলেন।

৬। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের সমাধিসৌধঃ
———————————————————————
দুপুরের শেষ দিকে পরিচালক স্যারের দুটি অপশন- শিশু পার্ক অথবা জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের সমাধিসৌধ কোনটি দর্শনে শিক্ষার্থীরা আগ্রহ প্রকাশ করবে বললে….
শিক্ষার্থীরা এক বাক্যে জাতীয় কবির সমাধিসৌধ দেখার আগ্রহ প্রকাশ করে।
শিক্ষার্থীরা অনেকেই কবির একটি বিশেষ কবিতা মনে করে মিলিয়ে দেখছিল… ঠিক জনপূর্ণ একটা মসজিদের পাশেই উনার সমাধিসৌধ।
সেখানে ছেলেরা সমাধিস্হল যিয়ারত করে এবং মেয়েরা ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

৭। জাতীয় জাদুঘরঃ
———————–
দুপুর ছুইছুই সময়ে আমরা হাজির হই জাতীয় জাদুঘরে।অনেক ঘুরাঘুরির পরে ক্ষিদার জ্বালা মেটাতে যদিও সেখানে বেশি সময় আমরা ছিলাম না, তবু উপস্হিত শিক্ষার্থীদের অনেকেই যারা পূর্বে জাদুঘরে আসেনি তারা পঞম শ্রেণির বইয়ে পড়া জাতীয় জাদুঘর সম্পর্কে বিষয়গুলো এখানে আগ্রহের সাথে আবিষ্কার করল।

৮। শাহবাগ বই মেলায় সানশাইন পরিবারঃ
—————————————————-

দুপুরে বিশাল আয়োজনে ভোজন বিলাস শেষে পড়ন্ত বিকালে সানশাইনের শিক্ষার্থীদের আনন্দময় অনুপ্রেরণামূলক সফরের সবচেয়ে কাঙ্কিত ও আনন্দদায়ক স্হানটি ছিল শাহবাগের বই মেলা।
আমাদের শিক্ষার্থীদের বই এবং বই মেলার প্রতি প্রচন্ড রকমের আগ্রহ। এই আগ্রহকে প্রাধান্য দিয়ে সুন্দর একটা পরিবেশে নতুন নতুন বইয়ের সংগ্রহ তারা আগ্রহ ভরে দেখার জন্য শাহবাগের বিশাল বই মেলায় আমরা হাজির হয়েছিলাম।

কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি সানশাইন মডেল হাই স্কুলের সম্মানিত সভাপতি এম.শামছুদ্দিন স্যারের প্রতি ব্যাতিক্রম এই অনুপ্রেরণামূলক শিক্ষা সফরের আয়োজন করার জন্য।

শিক্ষা সফরটি সফল করার জন্য শুভেচ্ছা রইল সানশাইন স্কুলের অধ্যক্ষসহ সকল শিক্ষকমন্ডলী, শুভাকাঙ্খী, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের জন্য।

আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি…বাহুবলের সন্তান ঢাবির ছাত্র রায়হানুল রবিন কে আমাদের সাথে থেকে গাইড হিসেবে সাহায্য করার জন্য।

কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদান্তে—

শারমিন সুমি
সানশাইন মডেল হাই স্কুল।
মিরপুর, বাহুবল, হবিগঞ্জ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

ওয়েবসাইটের কোন কনটেন্ট অনুমতি ব্যতিত কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design & Developed BY ThemesBazar.Com